Text size A A A
Color C C C C
পাতা

কী সেবা কীভাবে পাবেন

বন্দীদের সাথে দেখার নিয়মাবলী

 

ক)      বন্দীদের সাথে সাক্ষাতের সময় প্রতিদিন সকাল ৯-০০ ঘটিকা হইতে বিকাল ৪-০০ ঘটিকা পর্যমত্ম

 

খ)       বন্দীদের সাথে সাক্ষাতের জন্য কোন টাকা পয়সা নেওয়া হয়না। কাহাকেও টাকা দিবেন না। কেউ টাকা দাবী করলে জেল সুপার অথবা জেলারকে অবহিত করম্নন। 

 

গ)       হাজতী বন্দীদের সাথে ১৫ দিন পরপর সাক্ষাত করা যাবে এবং কয়েদী বন্দীদের সাথে মাসে একবার সাক্ষাত করা যাবে।

 

ঘ)       ডিটেন্যু ও নিরাপদ হেফাজতী বন্দীদের সাথে সাক্ষাত করতে হলে সংশ্লিষ্ট জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ও আদালতের অনুমতি প্রয়োজন।

 

ঙ)       সাক্ষাত করতে সর্বোচ্চ ৩০ মিনিটের মধ্যে শেষ করতে হবে।

 

চ)       মোবাইল বা অন্য কোন নিষিধ দ্রব্য নিয়ে সাক্ষাত কক্ষে প্রবেশ করবেন না। মোবাইল রাখার জন্য নির্ধারিত স্থান রয়েছে। নির্ধারিত স্থানে মোবাইল জমা রাখুন।  

 

ছ)       সাক্ষাত করার জন্য আবেদনপত্র দাখিল করতে হয়।  আপনি যদি আবেদনপত্র লিখতে না পারেন তাহলে  সাক্ষাত কক্ষের পার্শ্বে কর্তব্যরত কারারক্ষীর নিকট হইতে স্লিপ সংগ্রহ করে সাক্ষাত কক্ষে প্রবেশ করুন।

 

জ)      সাক্ষাত প্রার্থীদের সহজ ও ন্যায্য মূলে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি সরবরাহের লক্ষ্যে সাক্ষাত কক্ষের সামনে কারা ক্যান্টিন রয়েছে। ক্যান্টিনের নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি ন্যায্য মূলে বিক্রয় হচ্ছে । আপনি কারা ক্যান্টিন থেকে মালামাল ক্রয় করে বন্দীকে সরবরাহ করতে পারেন।  

 

পিসির টাকা জমার নিয়মাবলী

 

ক)      পিসির টাকা জমা দেওয়ার জন্য কোন আবেদন প্রয়োজন হয় না। পিসির টাকা গ্রহনের নির্ধারিত স্থান রয়েছে। নির্ধারিত স্থানে টাকা জমা করুন। অন্য কারো কাছে টাকা জমা দিবেন না।

 

খ)       পিসির টাকা জমা দানের ব্যাপারে কোন অতিরিক্ত টাকা প্রয়োজন হয় না।

 

গ)       পিসিতে জমাকৃত টাকা দ্বারা বন্দীগন কারাভ্যমত্মরের ক্যান্টিন থেকে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি ও খাদ্য দ্রব্য সূলভ মূলে ক্রয় করতে পারে।

 

ওকালতনামা সংক্রামত্ম নিয়মাবলী

 

ক)      ওকালতনামা র্নিদিষ্ট বক্সে ফেলুন, ১ ঘন্টা পরপর বক্স খোলা হয়।

 

খ)       কাউকে কোন টাকা পয়সা দিবেন না। ১ ঘন্টার মধ্যে বন্দীর স্বাক্ষরকৃত ওকালতনামা ফেরত পাবেন।

 

 

          জামিননামা সংক্রামত্ম নিয়মাবলী

 

 

গ)       জামিনে মুক্তি যোগ্য বন্দীদের নামের তালিকা নোটিশ বোর্ডে টাঙ্গানো হয়।

 

ঘ)       যে সব বন্দী জামিননামা ভুল আছে তাদের নামের তালিকাও টাঙ্গানো হয়।

 

ঙ)       বন্দী মুক্তি আধ ঘন্টার পরপর লাউড স্পিকার মাধ্যমে ঘোষনা করা হয়।

 

চ)       বন্দীর মুক্তির জন্য কোন অর্থের প্রয়োজন হয় না। যদি কেউ অর্থের আদায় করে তাহলে তাৎক্ষনিক জেলার/জেল সুপারকে অবহিত করুন।